পদ্মা সেতুর সকল তথ্য এবং বিশ্বরেকর্ড

বাংলাদেশের প্রধান নদী পদ্মার উপর যানবাহন চলাচলের উদ্দেশ্য বাংলাদেশ সরকার বিশ্বের অন্যতম ব্যায়বহুল এবং জটিল প্রকৌশল সম্পন্ন সেতু বানানোর উদ্যোগ গ্রহণ করে। এতে করে বাংলাদেশের দক্ষিনাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের যোগাযোগ উন্নতি হবে সারা দেশের সাথে। এখন এই পদ্মা নদী পারাপারের জন্য ফেরী ব্যবহার করা হয় যা অত্যন্ত সময়সাপেক্ষ এবং ঝুকিপূর্ণ।

পদ্মা সেতু

বাংলাদেশ সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু বাস্তবায়নের কাজ চলছে চীনা প্রতিষ্ঠানের সহায়তায় এবং এই প্রকল্পে প্রায় হাজারের অধিক দেশি শ্রমিক কাজ করে চলছে। পদ্মা সেতু ৬.১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্য নিয়ে বিশ্বের অন্যতম দীর্ঘ এবং জটিল নকশার সেতু হতে চলেছে। পদ্মা সেতুর ২ টি স্প্যানের নকশা জটিলতার জন্য প্রায় ১ বছর সময় লাগে যা ইতিহাসে বিরল। পদ্মা সেতু দেশের ২১ জেলার জন্য হতে চলেছে ভাগ্য বদলানো সেতু।

পদ্মা সেতুর সুবিধাভোগী জেলাসমূহ

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের পিছিয়ে পড়া ২১টি জেলা হচ্ছে- খুলনা বিভাগের খুলনা, বাগেরহাট, যশোর, সাতক্ষীরা, নড়াইল, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ ও মাগুরা। বরিশাল বিভাগের বরিশাল, পিরোজপুর, ভোলা, পটুয়াখালী, বরগুনা ও ঝালকাঠি এবং ঢাকা বিভাগের গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, মাদারীপুর, শরীয়তপুর ও রাজবাড়ী।

পদ্মা সেতুর খুটিনাটি সকল তথ্য

পদ্মা সেতুর পরিকল্পনা থেকে শুরু করে উদ্ভোদন হওয়া অবধি যেসকল তথ্য অত্যন্ত জরুরী সেসকল তথ্য একনজরে দেখে নিনঃ

  • পদ্মা সেতুর কাজ শুরু ৭ ডিসেম্বর, ২০১৪
  • পদ্মা সেতুর মূল কাজ উদ্বোধন ১২ ডিসেম্বর, ২০১৫ (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা)
  • পদ্মা সেতুর মূল আকৃতি দুই তলা
  • পদ্মা সেতুর কাঠামো নির্মিত কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে।
  • পদ্মা সেতুর কাজ করছে মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি, বীন
  • পদ্মা সেতুর নদী শাসন করছে সিনো হাইড্রো কর্পোরেশন, চীন
  • পদ্মা সেতুর নকশার AECOM
  • পদ্মা সেতুর রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ
  • পদ্মা সেতুর মোট খরচ ৩০১৯৩.৩৯ কোটি টাকা
  • পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার বা ২০১৮০ ফুট
  • পদ্মা সেতুর প্রস্থ ১৮.১৮ মিটার বা ৫৯.৬ ফুট
  • পদ্মা সেতুর লেন ৪ টি
  • পদ্মা সেতুর পিলার ৪২ টি
  • পদ্মা সেতুর স্প্যান ৪১ টি
  • পদ্মা সেতুর প্রথম স্প্যান বসে ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭; ৩৭ ও ৩৮ তম পিলারে শরীয়তপুর জাজিরা প্রান্তে
  • পদ্মা সেতুর ৬.১৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান হয় ১০ ডিসেম্বর, ২০২০ সালে ১২ঃ০২ মিনিটে
  • পদ্মা সেতুর সর্বশেষ স্প্যান বসে ১০ ডিসেম্বর, ২০২০ ১২ ও ১৩ তম পিলারে মুন্সীগঞ্জ এর মাওয়া প্রান্তে
  • পদ্মা সেতুর স্প্যান বসাতে কাজ করে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী ক্রেন- তিয়ান-ই যার ধারণক্ষমতা ৩৬০০ টন
  • পদ্মা সেতুর প্রতিটি স্প্যানের দৈর্ঘ্য ১৫০ মিটার প্রতিটি স্প্যানের সর্বোচ্চ ওজন ৩৪০০ টন
  • পদ্মা সেতুর মোট পাইল সংখ্যা ২৮৬ স্টিলের পাইল ২৬২ টি এবং কংক্রিটের পাইল ২৪ টি
  • পদ্মা সেতুর প্রতিটি পাইলের পরিধি ৩ মিটার
  • পদ্মা সেতুর পাইলের নিচের দৈর্ঘ্য ১১৪ মিটার থেকে ১২০ মিটার
  • পদ্মা সেতুর মেয়ারিং ব্যবহার হয় ৫ ধরনের ৯৬ টি বেয়ারিং
  • পদ্মা সেতুর মোট জয়েন্ট ৭ টি
  • পদ্মা সেতুর কাজে বিশ্বে প্রথম দুই ধরনের বিশেষ উপাদান ব্যবহার ঃ
    1. ভার্টিক্যাল আরসিসি বোর্ড পাইলে গ্রাউটিং ইনজেক্ট স্ক্রিন ফিকশন করে দৃঢ়তা বৃদ্ধি করে নদীর তলদেশের বহির্ভাবে শক্তি বৃদ্ধি এমন পাইল- ২২টি।
    2. স্টিল টিউবুলার ড্রিভেন পাইলে গ্রাউটিং ইনজেক্ট করে পাইলের তলদেশের স্কিন ফিকশন সক্ষমতা বৃদ্ধি করে এমন পাইল- ২৫২টি।
  • পদ্মা সেতুর নিচ তলা থেকে ২য় তলার ছাদের উচ্চাতা ২২ মিটার
  • পদ্মা সেতুর রেলপথ থেকে নদীর পানি ফাকা থাকবে ১৮ মিটার
  • পদ্মা সেতুর মূল সেতু ও সংযোগ সেতু যাথাক্রমে ৬.১৫ কিলোমিটার ও ৩.৬৮ কিলোমিটার
  • পদ্মা সেতুর সংযোগ সেতুসহ মোট দৈর্ঘ্য ৯.৮৩ কিলোমিটার
  • পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তে সংযোগ সেতু ১.৬৭০০৩ কিলোমিটার
  • পদ্মা সেতুর মাওয়া প্রান্তে সংযোগ সেতু ১.৫৩২ কিলোমিটার
  • পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তে রেল সংযোগ সেতু ১.৫৩২ কিলোমিটার
  • পদ্মা সেতু ভূমিকম্প সহনশীল রিখটার স্কেলে ৯ মাত্রার
  • পদ্মা সেতুতে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাসম্পন্ন হ্যামার ব্যবহার করা হয় যেটি ২ হাজার ৫০০ টন আঘাত হানতে পারে
  • পদ্মা সেতুর দ্বারা যুক্ত হবে দক্ষিনের ২১টি জেলা এবং দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের- ২৯টি জেলা
  • পদ্মাসেতুতে বিনিয়োগের অর্থনৈতিক প্রভাব বা [Economic Rate of Return (ERR)] দাঁড়াবে বছরে— ১৮.২২%
  • পদ্মাসেতুর কারণে জিডিপি- বাড়বে ১.২৩%
  • দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জিডিপি বাড়বে- ২.৩ শতাংশ

পদ্মা সেতুর তিনটি বিশ্বরেকর্ড

  1. বিশ্বের দীর্ঘতম পাইল- ১২২ মিটার স্থাপন
  2. ১৫ টন ওজনের ৯৮,৭২৫ কিলো নিউটন ক্ষমতাসম্পন্ন ফিকশন প্যান্ডিলাম বেয়ারিং ব্যবহার
  3. নদী শাসনের জন্য সর্বোচ্চ ১.১ বিলিয়ন (প্রায় ৮ হাজার ৮শ কোটি) টাকার চুক্তি

পদ্মা সেতু চালু হলে এটি বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য ফিরিয়ে দিবে এবং এর দ্বারা দেশের মোট দেশীয় উৎপাদন বা Grows Domestic Product বা GDP প্রায় ১.৩ শতাংশ বাড়তে পারে। তাই এককথায় এই সেতু দেশের মানুষের এর স্বপ্নের স্থাপনা হতে চলেছে।

1 thought on “পদ্মা সেতুর সকল তথ্য এবং বিশ্বরেকর্ড”

  1. খুব সুন্দর একটি পোস্ট, পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট সম্পর্কে একটি পোস্ট করবেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *